চোখের নিমিষে মাটিতে গুঁড়িয়ে গেল 10 বছর ধরে তৈরি করা বিশাল বহুতল বাড়ি! মুহূর্তে ভাইরাল হল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :-আমরা অনেক সময় নিজেদের বাসস্থানের জন্য হোক বা ব্যবসার কাজে হোক বা অন্য যেকোনো কাজের জন্য সরকারের জমির উপর নির্মাণ তৈরি করে নি ।কিন্তু একবারও ভাবি না যে কোনো কারণে যদি সরকার সেই জমি চেয়ে বসে তাহলে আপনার কষ্ট করে উপার্জন করা টাকায় তে তৈরি করা সে নির্মাণ বাড়িটি কি হবে? হয় তাকে ভেঙে ফেলতে হবে নইলে আপনাকে ভোগান্তির শিকার হতে হবে ।

সরকারের অনুমতি ছাড়া যেখানে সেখানে বেআইনিভাবে নির্মাণ তৈরি করলে সে নির্মাণ করা আবাসন বা ঘরবারি একসময় ভেঙে ফেলতে হবে এমনটা আমাদের প্রত্যেকের জানা । তবে এর চাক্ষুষ প্রমাণ কি কখনো আপনারা দেখেছেন,? যদি না দেখে থাকেন তাহলে এই ভিডিওটি প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ আপনার জন্য । কারণ আগের যে সমস্ত ঘটনাগুলো ঘটেছে সেই ঘটনা প্রমাণ করছে যে আপনি যতই প্রভাবশালী মানুষ হন না কেন যদি বিনা অনুমতিতে কোন জায়গায় ঘরবাড়ি বা যেকোনো ধরনের নির্মাণ করে তোলেন তাহলে কিন্তু আপনাকে দুর্ভোগের শিকার হতে হবে আর তারই পরিষ্কার চিত্র ফুটে উঠল এই ভিডিওর মাধ্যমে।।

সম্প্রতি তেমন একটি ভিডিও দেখা গেল ইউটিউবে এবং সোশ্যাল মাধ্যমে সমস্ত প্লাটফর্মে সেখানে দেখা যাচ্ছে যে অবৈধভাবে সরকারের অনুমতি ছাড়া বিশাল আকৃতির একটি ফ্ল্যাট বাড়ি তৈরি করেছে কোন একটি সংস্থা । সেখানে রয়েছে অনেকগুলি ঘর এবং অনেকগুলি ফ্লোর ।কিন্তু সেটি নজরে আসে সরকারের । তারপর তারা জমির কাগজপত্র এবং অন্যান্য তথ্য খতিয়ে বুঝতে পারে যে সেই আবাসন টি বেআইনিভাবে তৈরি করা হয়েছে। তাই আর বিন্দুমাত্র দেরি নয় ।সরকারের নির্দেশ অনুসারে ভেঙে ফেলা হয়েছে সে আবাসন কে কিন্তু এত বড় আবাসন কিভাবে ভাঙ্গা সম্ভব তা ভাবিয়ে তুলছিল প্রত্যেককে । যার উত্তর পাওয়া গেল এই ভিডিওর মাধ্যমে ।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে বিশাল আকৃতির আবাসন টি আগে থেকে ভেঙে ফেলা পরিকল্পনা করা হয়েছিল । যার ফলে তার আশে পাশে মানুষদেরকে নিরাপদ দূরত্বে স্থানান্তরিত করে দেওয়া হয়েছিল । তারপর হঠাৎ করেই উপর থেকে দুমড়ে-মুচড়ে পড়ে গেল গোটা আবাসন । মুহূর্তের মধ্যে এত দিনের কষ্ট পরিশ্রম ধুলিস্মাৎ হয়ে গেল । মাটির মধ্যে মিশে গেল ।ইতিমধ্যে সেই ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র । যদিও ভিডিওটি মর্মান্তিক কিন্তু কারো কিছু করার নেই এক্ষেত্রে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button