কালীঘাটে পুজো, মস্তক মুণ্ডন, গঙ্গায় স্নান, ‘প্রায়শ্চিত্ত’ ত্রিপুরার বিজেপি বিধায়কের?

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমানে বাংলার তথা ভারতের রাজনীতিতে এক গুরুত্বপূর্ণ রঙ্গমঞ্চের সূচনা ঘটেছে ত্রিপুরার বিজেপি বিধায়ক আশিস দাসকে ঘিরে। আসলে সারা ভারত আজ দেখছে বাংলার এই মুখ্যমন্ত্রীর কথা মতো ভোটের পর থেকেই ভারতের সবথেকে বড় ক্ষমতাসীন দল বিজেপির ভাঙন কেমন বাস্তব হয়ে দাঁড়িয়েছে। আশিস দাস তার প্রমান ভালোকরেই দিলেন। সুদূর ত্রিপুরা রাজ্য থেকে পশ্চিমবঙ্গে এসে মা কালীর মন্দিরে পুজো দিয়ে এদিন তিনি নিজের রাজনৈতিক জীবনের সবথেকে বড় সিদ্ধান্তটা নিলেন। তিনি মৌখিক ভাবে তার পুরানো দল ত্যাগ করলেন। এবার কখন তৃণমূলে যোগদান করবেন সেটাই সময়ের অপেক্ষা।

তবে ভবিষ্যতের কথা যদি বাদও দি তাহলেও এদিনের তার দলত্যাগও নেতাহ কম নাটকীয় নয়। মঙ্গলবার দুপুর ৩টে নাগাদ কালীঘাটের মন্দিরে পুজো দেন আশিস। তারপর মন্দিরে পুজোপাঠ সেরে তিনি তার প্র্যাসচিত্ত করার জন্য আদিগঙ্গার পাশে বসে নেড়া হয়ে যায়। তার পরেই তার আগের দল সম্মন্ধে বেশ কিছু কথা বলেন।

বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘‘শিশুপালকে শ্রীকৃষ্ণ বলেছিলেন, আর একটা অন্যায় করলে তোমার পাপের ঘড়া পূর্ণ হবে। তোমাকে মৃত্যুবরণ করতে হবে।’’ তার কোনো কথাতেই কোনো দলের সরাসরি উল্লেখ ছিলোনা বটে তবে সকলের অনুমান বিজেপি-তে এত দিন থাকাকেই ‘পাপ’ হিসাবে উল্লেখ করেছেন তিনি। এছাড়াও তিনি ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব এবং কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধেও নিজের বক্তব্য প্রকাশ করলেন। তিনি বললেন, ‘‘ত্রিপুরায় অরাজকতা চলছে। গত দু’বছর ধরে দল, প্রশাসন এবং সংগঠনের ঊর্ধ্বে উঠে মানুষের স্বার্থে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছি।’’

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে নিজের ক্ষোভ উগরে সুরমার বিজেপি বিধায়ক আশিস দাশ বলেন। ‘‘উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির মধ্যে প্রতিনিয়ত ত্রিপুরায় গেলেও রাজ্যের সমস্যা সমাধানের জন্য সেখানে যাননি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। বরং ত্রিপুরার সমস্যাকে বাড়িয়ে তুলেছেন তাঁরা।’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘অভিভাবক যদি সন্তানকে সঠিক পথে পরিচালিত না করেন, তবে ছেলেরা খারাপ হবে। এ ক্ষেত্রে শুধু বিপ্লব দেবকে দায়ী করলে চলবে না।’’ তার পর থেকেই বিজেপির ভাঙন সম্মন্ধে দেশ আরো নিশ্চিত হয়ে গেল।

আরও পড়ুন

Back to top button