পুজোয় চাই নতুন জামা, ফুটপাতে শাক বিক্রি করতে বসল চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন: ইতিমধ্যেই ছোটদের মধ্যে উন্মাদনা শুরু হয়ে গিয়েছে কারণ সামনেই পুজো। অনেকে আবার ঠিক করতে পারছে না কোন দিন কোন জামা পড়ে ঘুরতে যাবে। কিন্তু পরিস্থিতি ঠিক উল্টো জলপাইগুড়ি জেলার ধূপগুড়ির রাজদীপের।রাজদীপ চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র, অভাব তার নিত্যদিনের সঙ্গী। রাজদীপ এবং তার দাদার এখনো অবধি একটাও জামা হয়নি পুজোয়। কিন্তু ক্রমশ পুজো যত এগিয়ে আসছে, তার মনেও ইচ্ছা জাগছে নতুন জামা পরার।

ইচ্ছে থাকলেও বাবার সামর্থ্য নেই নতুন জামা কিনে দেওয়ার। তাই সে নিজেই চেষ্টা চালাচ্ছে নিজের জামা কেনার। রাস্তার ধারে শাক সবজি বিক্রি করা শুরু করেছে সে, সেই লাভের টাকা থেকেই নতুন জামা প্যান্ট কিনবে সে। এই নিয়ে রাজদীপ-এর বক্তব্য,” এখনও নতুন জামা কিনে দেয়নি বাবা। স্কুল বন্ধ, তাই স্কুল থেকেও এখনও নতুন কাপড় দেয়নি। তাই শাক বিক্রি করছি। এই টাকা দিয়ে জামা কিনব।”

সঞ্জয় তরফদার ধূপগুড়ির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা, সংসার চালান ফুটপাতে চা বিক্রি করেই। তাঁর বড় ছেলে সন্দীপ পড়ে ষষ্ঠ শ্রেণীতে এবং ছোট ছেলে রাজদীপ চতুর্থ শ্রেণীতে। অভাবের কারণে তিনি দুই ছেলেকে জামা প্যান্ট কিনে দিতে পারেননি এবারের পুজোয়। যেতে স্কুল বন্ধ এবং পড়াশুনার চাপ কম সেজন্য সন্দীপ বাবা চায়ের দোকানে কাজ শুরু করেছে। রাজদীপ শাকসবজি নিয়ে বসে বাবার দোকানের সামনে।

সন্দীপ এবং রাজদীপের ঠাকুরমা রেখা তরফদার এই বিষয়ে বলেছেন,” স্কুল বন্ধ থাকায় পড়াশোনায় আগ্রহ হারাচ্ছে ওরা। বাড়িতে পড়তে বসতে চায় না রাজদীপ। ওর দাদা বাবার সঙ্গে বেরিয়ে যায়। তাই ও একা বাড়িতে থাকতে চায় না। এখন বাজারে শাক বিক্রি করতে বসছে। কী করব, কিছু করার নেই। পুজো এলেও নতুন পোশাক এখনও কিনে দিতে পারিনি আমরা।”

আরও পড়ুন

Back to top button