এই পদ্ধতিতে প্রতি রবিবার করুন সূর্য দেবের পুজো, রোগ মুক্তি ঘটবে আপনার জীবন থেকে!

নিজস্ব প্রতিবেদন: রবিবার করুন শক্তির উৎস সূর্য দেবের পূজো, অবশ্যই ব্যাবহার করুন তামার পাত্র হিন্দুদের ৩৩ কোটি দেব দেবীর মধ্যে এক এবং অভিন্ন দৃষ্টান্ত দেবতা হলেন সূর্য দেব। সূর্য দেবতাকে শক্তি এবং তেজের আধার রূপে পূজা করা হয়। বলা হয় জীবনশক্তি, মানসিক শান্তি, শক্তি এবং জীবনে সাফল্য নিয়ে আসে সূর্য দেবের উপাসনা।

হিন্দু ধর্মের অবলম্বীরা মূলত তাদের প্রধান হিসাবে সৌর দেবতা কে মনে করেন ।কশ্যপ ও অদিতির পুত্র হলেন সূর্য দেব।আবার অনেকের মতে তিনি ইন্দ্রের পুত্র ।সব ঈশ্বর দের তুলনায় সূর্যদেব অন্য ধরনের,কারণ তিনি উদীয়মান। আকাশের দিকে তাকালেই দেখাতে পাই।আর রবিবারটা হলো সূর্য দেবতার জন্য।

সূর্য দেবকে রোগ বিনাশকারী হিসাবে স্মরণ করা হয়। বলা হয়, আকাশে সূর্য উদীয়মান হওয়ার পূর্বে পবিত্র গঙ্গা স্নান ব্যক্তিকে সকল রোগ ব্যাধি থেকে মুক্তি দেয়। সেইসঙ্গে ব্যক্তি সুস্বাস্থ্যের অধিকারীও হন। পুরান মতে, সূর্যদেব হলেন যোমরাজ, যমুনা দেবী ও শনি দেবের পিতা ।তবুও সূর্যলোকে অবস্থানরত এই সূর্যদেবকেও কিন্তু একবার শনিদেব তাঁর বক্রদৃষ্টি দিয়েছিলেন। তবে হিন্দু মতাদর্শে সূর্য দেব হলেন সৌভাগ্য ও সমৃদ্ধির দেবতা ।

স্নান সেরে উদীয়মান সূযের দিকে তাকিয়ে  হাত জোড় করে সূর্য দেবের দিকে তাকিয়ে বলুন ,- ”ওং ঘৃণি সূর্যায় নমঃ”,আপনার দিনটি শুভ হবে ।ঘিয়ের প্রদীপ, লাল ফুল, কর্পূর এবং ধূপ সহযোগে সূর্য দেবতার আরাধনা করলে দেবতা সন্তুষ্ট হবেন। পিতা শ্রী কৃষ্ণের কথামত পুত্র শম্ভ সূর্য দেবতার উপাসনা শুরু করেন। যার দ্বারা সে অল্প সময়ের মধ্যেই এই কঠিন ব্যাধী থেকে মুক্তি লাভ করে। তাই দেবতা সূর্যকে রোগ নিরাময়কারী বলেও অভিহিত করা হয়।

আরও পড়ুন

Back to top button