রাম মন্দির নির্মাণকে সামনে রেখেও অযোধ্যায় এবং বারাণসীতে পঞ্চায়েত ভোটে খারাপ ফল বিজেপির

কলকাতা হান্ট ডেস্কঃ প্রথম থেকেই ভারতীয় জনতা পার্টি বিভিন্ন জায়গায় হিন্দুত্ববাদী কার্ডের মাধ্যমেই নির্বাচনের ওপর প্রভাব সৃষ্টি করার চেষ্টা করে চলেছে।চলতি বছরের বাংলা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেনি। যদিও বাংলায় বিশেষ সুবিধা করতে পারেনি বিজেপি। অনেকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই তাবড় তাবড় বিজেপির নেতারা এখানে পরাজিত হয়ে গিয়েছেন। রীতিমতো বিপুল ভোটের ব্যবধানে তৃতীয় বার ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে শুধুমাত্র বাংলাতেই নয়,উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত ভোটেও খারাপ ফল দেখা গেল ভারতীয় জনতা পার্টির।সেখানে সমাজবাদী পার্টির দাবি, গেরুয়া শিবিরের চেয়ে অনেক বেশি আসনে জয়ী হয়েছেন তাদের প্রার্থীরা।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এখনো উত্তরপ্রদেশের অনেক জায়গাতেই ভোট গণনা চলছে। সেই জায়গাগুলোর প্রতি নজর রাখলে দেখা যাচ্ছে অযোধ্যা, বারানসী প্রভৃতি জায়গায় বিজেপির সার্বিক ভোটের ফলাফল অত্যন্ত নিম্নমানের। প্রসঙ্গত উত্তরপ্রদেশে ৪ স্তরে হয় পঞ্চায়েত নির্বাচন। সেখানে গ্রাম পঞ্চায়েত, গ্রাম প্রধান, ব্লক পঞ্চায়েত, জেলা পঞ্চায়েত স্তরে লড়াই হয়। ভারতে করোনাভাইরাস এর দ্বিতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পরেও এপ্রিল মাসে পঞ্চায়েত নির্বাচন সমাপন করা হয় এই রাজ্যে। একটি কথা জানিয়ে রাখি,উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত ভোটে দলের প্রতীক নিয়ে লড়তে পারেন না প্রার্থীরা। তবে সব দলই তাদের সমর্থন দিয়ে প্রার্থী দাঁড় করায়।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশের দিনকেই উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত ভোটের গণনা শুরু করা হয়েছিল। যদিও তা সত্ত্বেও এখনো পর্যন্ত সব আসনের ফলাফল ঘোষণা করতে পারেনি জাতীয় নির্বাচন কমিশন। এখনো পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, গণনা চলাকালীন দেখা গিয়েছে জেলা পঞ্চায়েত স্তরের ৪০ টি আসনের মধ্যে মাত্র ৭ টি আসনে এগিয়ে রয়েছেন বিজেপির নির্ধারিত প্রার্থীরা। অপরদিকে সমাজবাদী পার্টির প্রার্থীদের ক্ষেত্রে এই এগিয়ে থাকা আসনের সংখ্যা ১৫ টি। বাকি তথ্য যদিও সম্পূর্ণ ফলাফল প্রকাশের পরই জানা যাবে। তবে এতটুকু অবধি নজর রেখেই সমাজবাদী পার্টির নেতারা বিজেপির ফলাফল মুখ থুবড়ে পড়তে চলেছে বলে দাবি করতে শুরু করে দিয়েছেন।

শুধুমাত্র বারানসী নয় অযোধ্যার ক্ষেত্রেও একই ঘটনা দেখা গিয়েছে। এখানেও ৪০টি জেলা পঞ্চায়েত আসনের মধ্যে বিজেপি মাত্র ৬টি আসনে এগিয়ে রয়েছে।আর সেই জায়গায় সমাজবাদী পার্টি ২৪টি আসন দখল করছে।সবথেকে আশ্চর্যের বিষয় গত বছর বেশ জাঁকজমক সহকারে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ শুরু করলেও পঞ্চায়েত ভোটে তার বিশেষ কোনো প্রভাব লক্ষ্য করা যায়নি। যদিও তার ঠিক উল্টোটাই আশা করেছিলেন রাজনৈতিক মহলের বিশেষজ্ঞরা।উত্তরপ্রদেশে জেলা পঞ্চায়েত স্তরে মোট ৩ হাজার ৫০ আসনে ভোট হয়েছে। বিজেপি দাবি করছে ৯১৮ আসন তারা ইতিমধ্যেই জিতে গিয়েছে। আরও ৫০০টি আসনে তারা এগিয়ে। প্রসঙ্গত রাম মন্দির নির্মাণ সামনে থাকার পরেও যোগীর রাজ্য উত্তরপ্রদেশে বিশেষ সুবিধা করতে পারেনি বিজেপি।ফলস্বরূপ পরবর্তী বিধানসভা এবং লোকসভা নির্বাচন গুলিতেও এই রাজনৈতিক দলের ফলাফল নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। যদিও এখনও অবধি নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশ পাওয়ার আগে কোন রকম মন্তব্য করতে নারাজ পদ্মফুল শিবিরের নেতারা।