‘কাক কখনোই ময়ূর হয় না’, কমলে কামিনী দেবী সাজতেই ট্রোলের শিকার সকলের প্রিয় মিঠাই

মহালয়া আর মাত্র একদিনের আপেক্ষা। কালই মহালয়া। ভাদ্রের প্রখর রোদ্রের পর আশ্বিনের আগমনে প্রকৃতি সেজে উঠেছে নবরূপে। এই আশ্বিনের প্রাতে দেবী দুর্গার বোধনের কাহিনী শোনার জন্য অধীর আগ্রহে বসে থাকেন সকলে। মহালয়ার সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িয়ে রয়েছে মহিষাসুরমর্দিনীর কাহিনী শোনার পালা। রেডিও তো রয়েছেই। তার সাথে বিভিন্ন চ্যানেলে দেখানো হয় মহিষাসুরমর্দিনী। প্রতিবছর একেকটা চ্যানেলের একেকরকম চমক থাকে। এবছরেও বিভিন্ন চ্যানেলে থাকছে নতুন নতুন চমক। পরিচিত অভিনেত্রীদের দুর্গার বিভিন্ন রূপে দেখা যাবে।

এবারে জি বাংলার মহালয়ার অনুষ্ঠানে সৌমিতৃষাকে দেখা যাবে দুর্গা রূপে। এই সৌমিতৃষা দর্শকদের কাছে মিঠাই রাণী হিসেবেই পরিচিত। অল্পদিনের মধ্যেই দর্শকদের খুব কাছের হয়ে উঠেছে । স্যোশাল মিডিয়ার সর্বত্র এই অভিনেত্রীর অবাধ বিচরণ। স্যোশাল মিডিয়াতে খুব অ্যাক্টিভ তিনি। শুধু যে তিনি নানারকম ছবি পোস্ট করেন তাই নয়, তাকে মাঝে মাঝেই বিভিন্ন ধরনের মজার ভিডিও করতে দেখা যায়। আবার জনপ্রিয়তার কারণে তার বিভিন্ন ইন্টারভিউ নেওয়া হয়ে থাকে মাঝে মাঝেই। সেই ইন্টারভিউ গুলো বেশ সুন্দর হয়।

এবারে সৌমিতৃষাকে দেখা গেল একেবারে অন্য রূপে। এবারে মহালয়াতে মিঠাইকে ‘কমলে কামিনী’ রূপে দেখা যাবে জি বাংলার পর্দায়। জি বাংলার মহালয়ার অনুষ্ঠানে একইসাথে দেখা যাবে শুভশ্রী গাঙ্গুলী, রিমলী, যমুনা, অপু এবং মিঠাইকে অর্থাৎ সৌমিতৃষা কুণ্ডুকে। ‘কমলে কামিনী’ রূপেই ধরা দেবেন সৌমিতৃষা। ‘কমলে কামিনী’ হলেন দেবী দুর্গার এক অবতার রূপ। দশ মহাবিদ্যার অন্তিম রূপ এই কমলা। এই রূপে দেবীকে সমুদ্রে একটি পদ্মের মধ্যে গণেশকে কোলে নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। মূর্তিতে দেখা যায় চারটি বড় হাতি দেবীকে স্নান করায়।

দেবীর মস্তকে থাকে রত্ন মুকুট এবং তিনি পটোবস্ত্র পরিহিতা। এই দেবীর চারটি হস্ত এবং ওই হস্তে রয়েছে দুটি পদ্ম ও বরাভয় মুদ্রা। এই সাজেই সেজে উঠবে সৌমিতৃষা। সম্প্রতি, ইনস্টাগ্রামে তিনি এই ‘কমলে কামিনী’ সাজের রূপ প্রকাশ করেছেন। দেবীর সাজে সেজে উঠেছেন অভিনেত্রী সৌমিতৃষা কুণ্ডু। এছাড়াও নাচে প্র্যাকটিসের ভিডিও পোস্ট করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। মিঠাইকে দেবী রূপে দেখার জন্য উদগ্রীব তাঁর ভক্তমহল।

সম্প্রতি জি বাংলার অফিসিয়াল পেজে মহালয়ার রিহার্সালের ভিডিওয়ের নীচে সৌমিতৃষা লিখেছেন রিহার্সালের ভিডিও পোস্ট করে দিলে! তবে সৌমিতৃষার এই মন্তব্যের নীচে এক মহিলা লিখেছেন “শোনো সবাইকে দেবীরূপে মানায় না। কাক কখনো ময়ূর হতে পারে না। তোমাকে দেবী কমলে কামিনী রূপে একদমই মানায় নি।” তাঁর মতে এই পথ যদি না শেষ হয় ধারাবাহিকের অন্বেষাকে বেশি ভালো মানাতো। তবে সৌমিতৃষার অনেক ভক্তই পছন্দ করেননি এই মন্তব্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button