কেক কেটে মাখামাখি, ‘খড়কুটো’-র সেটে পালন বাবিনের জন্মদিন, কি করলেন গুনগুন!

স্টার জলসার খরকুটো ধারাবাহিকটি বাংলা ধারাবাহিকগুলোর মধ্যে টি আর পি-এর দিক থেকে বেশ এগিয়ে রয়েছে। এই ধারাবাহিকটি প্রথম থেকেই দর্শকদের মনে ছাপ ফেলেছিল ভীষণভাবে। এই ধারাবাহিকে প্রত্যেকটি চরিত্র নিঁখুত অভিনয় দ্বারা দর্শকদের মনে চিরস্থায়ী আসন তৈরি করে নিতে পেরেছে। এমনকি এই ধারাবাহিকের হাসি,মজা,আনন্দ সকল দর্শক উপভোগ করেন। এই ধারাবাহিকে বাবিনের পরিবার সবসময় হৈ হৈ করে সমস্ত অনুষ্ঠান পালন করে থাকে। কখনো জেঠু-জেঠির বিয়ে, কখনো বাড়ির বাচ্চা হওয়ার আনন্দে সকলের আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে নৃত্য পরিবেশন, অদ্ভুত রকমের সঙ্গীত পরিবেশন সবই হয়ে থাকে এই ধারাবাহিকে। এখন তো আবার বাবিনের বাড়িতে দুর্গাপুজো শেষে দশমীর অনুষ্ঠানে নাটকের মহড়া চলছে। সব মিলিয়ে জমজমাট খরকুটো।

এবারে খরকুটোর সেটে পালিত হলো বাবিন অর্থাৎ কৌশিক রায়ের জন্মদিন। সেখানেও হৈ হৈ ব্যাপার। ইন্সটাগ্রামে তৃণা কয়েকটি ছবি ও কয়েকটি ব্যুমেরাং শেয়ার করেছেন কৌশিকের জন্মদিন পালনের। এগুলি পোস্ট করে তৃনা কৌশিককে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। ছবি ও বুমেরাংগুলিতে দেখা যাচ্ছে একটি সাদা-গোলাপি নেটের টেবিলক্লথ দিয়ে ঢাকা টেবিলের ওপর ব্ল্যাক ফরেস্ট ও হোয়াইট ফরেস্ট ডিজাইনের হার্ট শেপ কেক কাটছে বাবিন অর্থাৎ কৌশিক। আবার টেবিলে কেকের পাশে একটি বড় হার্ট শেপের চকোলেটও রাখা ছিল, যেখানে লেখা হয়েছিল কৌশিকের নাম। খরকুটো ধারাবাহিকের সকলে মিলে কেক কেটে জন্মদিন পালন করলেন কৌশিকের। তবে শুধুই কি কেক কাটা? এর সাথে চললো দেদার কেক মাখামাখি। যার জন্মদিন,তাকে সবচেয়ে বেশি কেক মাখানো হলো। কৌশিকের নাম লেখা চকলেটও খাওয়া হয়েছিল সবাই মিলে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Trina Saha Bhattacharya (@trinasaha21)

তবে সকলের পরনেই ছিল সাবেকি পোশাক। কারণ হচ্ছে তারা শুটিং শেষেই জন্মদিন পালন করেছেন। আর এই মুহূর্তে যেহেতু ‘খড়কুটো’-য় চলছে দুর্গাপুজোর পর্ব,তাই সকলের সাবেকী সাজ। বার্ডে বয় বাবিনের পরনে ছিল লাল কাজ করা সাদা পাঞ্জাবি। আর গুনগুনের পরনে লাল পাড় সাদা শাড়ি। আবার গুনগুনের মাথা ও গালভর্তি সিঁদুর। অর্থাৎ তারা দশমীতে সিঁদুর খেলার পর সৌজন্যের জন্মদিন পালন করেছে। যাই হোক সৌজন্যের অনুরাগী মহল সৌজন্যকে জন্মদিনের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন। খরকুটোর পুরো টিম যে শুটিং-এর ব্যস্ততার ফাঁকেও বেশ মজা করে তাদের সময় অতিবাহিত করে একথা তো নতুন করে বলার কিছু নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button