অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত আইপিএল, ক্রিকেটারদের ঘরে ফেরার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বোর্ডের তরফে!

অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত আইপিএল, ক্রিকেটারদের ঘরে ফেরার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বোর্ডের তরফে!

কলকাতা হান্ট ডেস্কঃ করোনা সংক্রমনের দ্বিতীয় ঢেউ ক্রমাগত ছড়িয়ে পড়ছে গোটা ভারত জুড়ে। কিন্তু এরই মধ্যে রমরমিয়ে বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই চলছিল আইপিএল।প্রথম থেকেই এই খেলার সাথে যুক্ত বিভিন্ন ক্রিকেটাররা ময়দান ছেড়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। শেষমেষ দেশের সংকটজনক পরিস্থিতির উপর নজর রেখে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করে দেওয়া হল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ।আপাতত আইপিএল এর সাথে যুক্ত সমস্ত ক্রিকেটার এবং স্টাফদের বাড়ি করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বোর্ডের তরফে, এমনটাই জানা গিয়েছে।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য কিছুক্ষণ আগেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।

বোর্ডের এই দীর্ঘ বিবৃতিতে লেখা রয়েছে,”আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্যরা ও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সদস্যরা জরুরিভিত্তিক বৈঠক করে। তাতেই সর্বসম্মতিক্রমে চলতি আইপিএল এখনই স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।খুব কঠিন সময় যাচ্ছে। বিশেষ করে ভারতে। আমরা কিছু অন্তত ইতিবাচক ও আনন্দের মুহূর্ত উপহার দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু বাধ্য হয়ে টুর্নামেন্ট এখনই স্থগিত করতে হচ্ছে। এই কঠিন সময়ে সকলেই তাঁদের পরিবার ও প্রিয়জনদের কাছে ফিরে যাক।ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড তাদের সর্বোচ্চ ক্ষমতায় গিয়ে চেষ্টা করবে সকল অংশগ্রহণকারী যাতে নিরাপদে বাড়ি ফিরে যেতে পারে।সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মী, রাজ্য ক্রিকেট সংস্থা, ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফ, ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্তৃপক্ষ, স্পনসর, পার্টনার ও সার্ভিস প্রোভাইডার যাঁরা এই কঠিন সময়েও আইপিএল আয়োজন করেছিলেন তাঁদের সকলকে বোর্ডের তরফ থেকে ধন্যবাদ“।

উল্লেখ্য বিগত প্রায় বেশ কিছুদিন ধরেই আইপিএল এর সাথে জড়িত অনেক সদস্য এবং ক্রিকেটাররা ক্রমাগত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছিলেন। এই মুহূর্তে দেশের যে সংকটজনক পরিস্থিতি রয়েছে তাতে এই অবস্থা সামাল দেওয়া সম্ভবপর নয়। গতবছর করোনাভাইরাস এর প্রথম দফা শুরুর সময় আইপিএল শুরু হতে প্রায় অনেকটাই দেরি হয়ে গিয়েছিল।কিন্তু চলতি বছরে প্রথমেই বিসিসিআইয়ের বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী জানিয়ে দিয়েছিলেন যাই হয়ে যাক না কেন আইপিএল নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী শুরু হবে। সেইমতো এপ্রিল মাসের ৯ তারিখে আইপিএলের প্রথম ম্যাচ অনুষ্ঠিত করা হয়।

কিন্তু তারপর থেকেই একের পর এক ক্রিকেটার এবং সদস্যরা আক্রান্ত হতে থাকেন।সংক্রমিত হয়েছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ঋদ্ধিমান সাহা। সংক্রমিত হয়েছেন দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্রও।গতকাল সংক্রমিত হয়েছিলেন কেকেআর-এর বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়ারিয়র। এই পরিস্থিতিতে আর কোন উপায় না থাকায় শেষ পর্যন্ত খেলা স্থগিত করাই ভালো মনে করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।দেশজুড়ে অক্সিজেনের অভাব এবং স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর অনুন্নতির ফলে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে আপাতত তা নিয়ন্ত্রণ করাই প্রধান লক্ষ্য। বর্তমানে ভারতের সাহায্য করতে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশ নিজের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আমরা আশা করব খুব দ্রুত যেন এই পরিস্থিতি থেকে দেশের প্রতিটি মানুষ নিজেদের অসুস্থতা কাটিয়ে উঠতে পারেন।