কমছে তাপমাত্রার পারদ, আজ সারাদিন বৃষ্টির পূর্বাভাস জানালো আবহাওয়া দপ্তর

কমছে তাপমাত্রার পারদ, আজ সারাদিন বৃষ্টির পূর্বাভাস জানালো আবহাওয়া দপ্তর

কলকাতা হান্ট ডেস্কঃ সপ্তাহের শুরুতেই বৃষ্টির পূর্বাভাস জানানো হয়েছিল আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে। সেইমতো রবিবার সকাল থেকেই বৃষ্টিস্নাত হয়েছে গোটা বাংলা। এরই মধ্যে গোটা সপ্তাহ জুড়ে বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকায় শেষ পর্যন্ত আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের থেকে তাপমাত্রার পারদ হ্রাসের খবর পাওয়া গেল।প্রসঙ্গত বিগত কয়েক দিন ধরেই ক্রমাগত তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে গরমে হাঁসফাঁস করছিলেন রাজ্যবাসী। দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে তাপপ্রবাহের ফলে জীবনযাত্রা প্রায় কঠিন হয়ে গিয়েছিল বললেই চলে। তাই আচমকাই এই স্বস্তির বৃষ্টিতে অনেকটাই খুশি হয়েছে বাংলার জনগণ।জানা গিয়েছে, চলতি সপ্তাহের শনিবার পর্যন্ত টানা বাংলার বিভিন্ন অংশ জুড়ে বৃষ্টিপাত দেখা দিতে চলেছে।

আজ বিকেল থেকেই মালদা, দুই দিনাজপুর, মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সঙ্গে ঘণ্টায় ৪০-৫০ কিমি বেগে বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়াও। আসুন এবার দেরি না করে এক নজরে জেনে নেওয়া যাক আজ রাজ্যের কোথায় কেমন থাকবে তাপমাত্রা! আজ উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং প্রভৃতি জেলার সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে যথাক্রমে ২৬ ডিগ্রি ও ১৫ ডিগ্রির কাছাকাছি।জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, শিলিগুড়ি প্রভৃতি জায়গাতেও সর্বোচ্চ তাপমাত্রার পরিমাণ অনেকটাই কমে গিয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের জেলা গুলির ক্ষেত্রে আজ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে মোটামুটি ৩৪ ডিগ্রির কাছাকাছি। এই জেলাগুলির মধ্যে রয়েছে পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া, বীরভূম, পুরুলিয়া প্রভৃতি। আজ মঙ্গলবার কলকাতা শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩১.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে প্রায় ৩ ডিগ্রি কম। অপরদিকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকতে চলেছে ২৪.২ ডিগ্রি।বাতাসের আপেক্ষিক আদ্রতার পরিমাণ আজ অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেকটাই কম থাকবে। জলীয়বাষ্পের পরিমাণ তুমুল ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

সকালের দিকে এলাকার কয়েকটি জায়গায় ভারি বজ্রবিদ্যুৎ সহ ঝড় এবং রাতের দিকে আংশিক মেঘলা আকাশ থাকতে পারে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।দুই বঙ্গেই বৃষ্টিপাতের পরিমাণ থাকবে অত্যধিক। তবে পরবর্তী সপ্তাহেই তাপমাত্রার পরিমাণ ধীরে ধীরে আবারো ঊর্ধ্বমুখী হতে পারে। সকাল থেকেই আজ প্রায় বেশিরভাগ জায়গাতে বৃষ্টি দেখা যাচ্ছে। রোদের তীব্রতার প্রভাব প্রায় নেই বললেই চলে। তবে আগাম সতর্কবার্তা হিসেবে এখন থেকেই পরামর্শ মেনে চলার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তাই দেশের এই সংকটজনক পরিস্থিতিতে যতটা সম্ভব নিজের এবং অপরের সুস্থতার দিকে নজর রাখুন। এই সময় সুস্থ থাকার জন্য অবশ্যই পরিমিত ভাবে জল পান করার পাশাপাশি সঠিক সময়ে খাদ্য গ্রহণ করবেন। কারণ মানুষের শরীর সুস্থ রাখার জন্য জল এবং খাদ্যের ভূমিকা অনস্বীকার্য। শিশু এবং বৃদ্ধদের এই সময়ে বিশেষ ভাবে যত্ন নেওয়ার চেষ্টা করবেন। যদি আগে থেকেই কোন রকম শারীরিক সমস্যা থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই নিজের শরীরের আরো ভালো করে যত্ন নিন।