‘বিজেপিকে যত তাড়াতাড়ি পারেন সরান, দেশকে বাঁচান’ জনগণের কাছে আর্জি মমতার

নিজস্ব প্রতিবেদন:- প্রথম তিন দফার ভোট সমাপন হওয়ার পর আপাতত চতুর্থ দফার ভোটের প্রচারকাজে মেতে উঠেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।ঠিক একইভাবে প্রথম সময়কার মতন শহর থেকে গ্রাম হুইলচেয়ারে করেই প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর প্রচার এর প্রধান কেন্দ্রে রয়েছে বিরোধী দলের দুর্নীতি থেকে শুরু করে মূল্যবৃদ্ধি। তবে চলতি নির্বাচনে শাসকদল বেশ কিছু সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। যেমন প্রথমেই বলা যায়, গত বছরের শেষ দিক থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসে একপ্রকার ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যেই একাধিক দাপুটে নেতারা তৃণমূল কংগ্রেস পরিত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। এই বিক্ষুব্ধ নেতাদের মধ্যে সবার প্রথমে নাম রয়েছে শুভেন্দু অধিকারীর।প্রবীণ রাজনীতিবিদ শিশির অধিকারীর পুত্র ছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে একজন দাপুটে নেতা শুভেন্দু। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে যেমন রাজ্যে প্রভাব রয়েছে মমতার তেমনই বেশ কিছু অংশের সংগঠনিক ক্ষেত্রগুলিতে প্রভাব রয়েছে শুভেন্দু অধিকারীর। দীর্ঘ কয়েক বছর তৃণমূল কংগ্রেস এর সাথে যুক্ত থেকে রাজনীতি করেছেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ করে গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে জল্পনা শুরু হলে শেষমেষ গেরুয়া শিবিরে যোগদান করার সিদ্ধান্ত নেন শুভেন্দু। ওয়াকিবহাল সূত্রের খবর অনুযায়ী,তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তথা মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপোর সাথে বিবাদের জেরেই দল ত্যাগ করেছিলেন শুভেন্দু।

আরও পড়ুনঃ Covaxin-র দ্বিতীয় ডোজ নিলেন মোদী

এমতাবস্থায় আজ চতুর্থ দফার ভোটের প্রচারে শ্রীরামপুর আসনে গিয়ে জনসভায় অংশগ্রহণ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা।সেখান থেকে বিরোধী শিবির তথা কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে আক্রমণ করতে গিয়ে মূল্য বৃদ্ধি সহ ব্যাংকের সুদের পরিমাণকে হাতিয়ার করেন মমতা। বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন,”টাকা আপনি ব্যাঙ্কে রাখছেন, বিমা করছেন, কোনও নিশ্চয়তা আছে যে আপনি টাকাটা ফেরত পাবেন? সুদ কমিয়ে দিচ্ছে। ব্যাঙ্ক বন্ধ করে দিচ্ছে। বিজেপিকে যত তাড়াতাড়ি পারেন সরান, দেশকে বাঁচান। তুমি তো ৬ বছর দিল্লিতে আছো, ডবল ইঞ্জিন কোথায় গেল?ভীতু এজেন্টদের দূর করে দেবেন। তবে সবাই অবশ্যই ভোট দেবেন। ওটা কিন্তু রেকর্ড হবে”। প্রসঙ্গত এর আগেও মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সরব হতে দেখা গিয়েছিল তৃণমূল নেত্রীকে।পেট্রোপণ্যের অত্যধিক মূল্যবৃদ্ধির সময় মুখ্যমন্ত্রী সেই প্রতিবাদের নবান্ন থেকে নিজের বাড়ি পর্যন্ত ইস্কুটার যাত্রা করেছিলেন। শুধু তাই নয় দিন কয়েক আগে রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে সিলিন্ডার নিয়ে উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে পদযাত্রা করেন তিনি।তার এই কর্মসূচিগুলি ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল জনগণের মনে তা নিঃসন্দেহে বলা যায়। উল্লেখ্য আগামী ১০ ই এপ্রিল রয়েছে চতুর্থ দফার বিধানসভা আসনের ভোট। এর আগে মোটামুটি নির্বিঘ্নেই প্রথম দুই দফার ভোট সম্পন্ন হয়েছে। তৃতীয় দফার ভোটে সামান্য কিছু অশান্তি দেখা গেলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন।