নদীর নীচে রয়েছে হাজার খানেক শিবলিঙ্গ, প্রায় ৪০০ বছরের পুরনো এই স্থান

shib linga
shib linga
Advertisement

এখন চলছে শ্রাবণ মাস। এই মাসকে ধরা হয় মহাদেবের পুজোর মাস বলেই।এই পৃথিবীর বুকে ভিন্ন ভিন্ন রূপে বিরাজ করছেন মহাদেব।

কর্ণাটক রাজ্যের উত্তর কন্নড় জেলার সিরসি তালুক থেকে মাত্র ১৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সহস্রলিঙ্গ!
কর্নাটকের এই ঐতিহাসিক স্থানে শ্রাবণ মাসে চোখে পড়ার মতো পুণ্যার্থীদের ভিড় হয়।

এই এলাকার‌ এরূপ নামকরণের কারণ? কারণ এখানে রয়েছে সহস্র অর্থাৎ ১০০০টি শিবলিঙ্গ। এবং রয়েছে লিঙ্গেশ্বর মন্দিরও। এই অদ্ভুত শিবলিঙ্গ গুলি নেত্রবতী ও কুমারধারা নদীর মধ্যে অবস্থিত। এদের অবস্থান নদীর জলের মধ্যেই। শুধু শিবলিঙ্গ নয় রয়েছে নন্দী ভৃঙ্গী ও শিবের বাহন।
তবে শুধুমাত্র লিঙ্গ গুলি দেখা যায় ফেব্রুয়ারি মাসে নদীর জল কমে গেলে।

বলা হয় এগুলি তৈরি হয়েছিল সম্পূর্ণভাবে নিজ থেকে। কথিত আছে ভীম নিজের হাজারটি চুল ফেলেছিল কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের পর। হাজারটি শিবলিঙ্গের সৃষ্টি হয়েছিল তা থেকেই।

তবে ইতিহাস বলছে, ১৬০০ শতকে এই শিবলিঙ্গ গুলি তৈরি করেছিলেন সিরসির রাজা সদাশিব রায়ভর্মা। মনে করা হয় রাজার আদেশে এইসব শৃঙ্গ তৈরি করা হয়েছিল।তার বিশ্বাস ছিল যে এমন টা করলেই হয়তো তার সাম্রাজ্যে উত্তরাধিকার জন্ম নেবে।এরপর সদাশিব রায়ের মৃত্যুর পর শালমলা নদীর জলে নিমজ্জিত হয় এই সহস্র শিবলিঙ্গ গুলি। এরপর কালের নিয়মে জল কমে যাওয়ার পর আবারও ভেসে উঠেছে শিবলিঙ্গ গুলি।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে এটি একটি অত্যন্ত পবিত্র স্থান।
প্রতিবছর মহা শিবরাত্রির দিন প্রচুর ভক্তের সমাগম হয়।

Advertisement