বাংলায় কি আরও বৃষ্টির সম্ভবনা? না বিদায় নেবে বৃষ্টি, কী জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর?

আবহাওয়ার সবরকম খবর আগে থেকে জেনে রাখা উচিত। কারণ আগে থেকে জানা থাকলে আগে থেকেই সচেতন হওয়া যাবে। তাই সবধরনের খবর জানার সাথে সাথে আবহাওয়া সম্পর্কেও আমাদের সম্যক জ্ঞান থাকা জরুরি। এখন তো আমরা মুঠোফোন থেকেই আবহাওয়ার খবর পেয়ে থাকি। এটাই আমাদের বড়ো সুবিধার বিষয়।

বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবছর বৃষ্টির পরিমাণ বেশি। নিম্নচাপের কালো ভ্রুকুটি যেন সরতেই চাইছে না। তাই রাজ্যজুড়ে এক টানা বৃষ্টিতে বিঘ্ন হয়েছে জীবনযাত্রা। বহু এলাকার বাড়িঘর ভেঙ্গে পড়েছে, পাহাড়ি অঞ্চলে ধ্বস নেমেছে। আবার অনেক জায়গা এখনও জলমগ্ন হয়ে রয়েছে। বহু এলাকা থেকে সরকারের প্রচেষ্টায় লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে অনেক এলাকাতে এখনও সেটা সম্ভব হয়নি। আবার পানীয় জলের সংকট এবং খাদ্য সংকট তো রয়েছেই। উজ্জ্বল রোদ আকাশে জানে তেমনভাবে দেখাই যাচ্ছে না। এই মুহূর্তে অনেকেরই প্রশ্ন তাহলে কি এবার পুজোতেও বৃষ্টি হবে? আর ক’দিন চলবে এই বৃষ্টিপাত?

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে যে এবারে বৃষ্টি কমতে চলেছে উত্তরবঙ্গে। উত্তরবঙ্গে আর একটানা বৃষ্টিপাত হবে না। তবে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে উত্তরবঙ্গে। উত্তরবঙ্গের বেশকিছু জেলায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে। বিশেষত কোচবিহার ,আলিপুরদুয়ার জেলায় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ একটু বেশি। এছাড়াও দার্জিলিং সহ অন্যান্য জেলায় বৃষ্টিপাত হবে। ওদিকে দক্ষিণবঙ্গেও বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। মুর্শিদাবাদ, বীরভূমে অধিক বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আবার উত্তর পশ্চিম ভারতে আবহাওয়ার পরিবর্তন হবে। উত্তর পশ্চিম ভারতে ধীরে ধীরে শুষ্ক আবহাওয়া সৃষ্টি হবে। আবহাওয়াবিদদের ধারণা যে, আগামী ৬ ই অক্টোবর বুধবার থেকে উত্তর পশ্চিম ভারতের বেশকিছু অংশ থেকে বিদায় নিতে পারে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু।পাঞ্জাব, হরিয়ানা, চন্ডিগড় , দিল্লি এইসব এলাকাতে মৌসুমী বায়ুর বিদায় পর্ব শুরু হবে।

আবার জানা গেছে যে পূর্ব বিহার ও সংলগ্ন এলাকার নিম্নচাপ শক্তি হারিয়েছে। তবে উত্তরবঙ্গে এখনও একটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরের মধ্যভাগে তৈরি হয়েছে একটি ঘূর্ণাবর্ত। এটি তামিলনাডু উপকূল পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এই ঘূর্ণাবর্ত থেকে একটি অক্ষরেখা কর্নাটক উপকূল পর্যন্ত বিস্তৃত। এটি লাক্ষাদ্বীপের উপর দিয়ে গেছে। তাই উত্তরবঙ্গে এই ঘূর্ণাবর্তের জন্য বৃষ্টিপাত চলবে।

আজ সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস ৷ এই তাপমাত্রা স্বাভাবিকের ২ ডিগ্রি উপরে রয়েছে। গতকাল বিকেলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস স্বাভাবিকের ১ ডিগ্রি উপরে। আর জলীয় বাষ্পের পরিমাণ ৬৭ থেকে ৯৫ শতাংশ।আগামী কয়েকদিন আবহাওয়া পরিবর্তনের কোনোরকম সম্ভাবনা নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button