হতাশা আসলে কি? এবং কি তার মুক্তির উপায়

হতাশা আসলে কি? এবং কি তার মুক্তির উপায়
ছবিসূত্র Google

আমরা এমন এক যুগে বাস করছি সেখানে দাঁড়িয়ে আমাদেরকে শারীরিক স্বাস্থ্যের মত মানসিক স্বাস্থ্য কেউ অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। এবং এই মুহূর্তে নিজের সাথে সাথে অন্যদেরকেও এ বিষয়ে সতর্ক উৎসাহী করে তুলতে হবে।

ডিপ্রেশন বা হতাশা হল একপ্রকার নিম্নমানের মেজাজ এবং বিভিন্ন ক্রিয়া-কলাপ থেকে বিরত থাকার অবস্থা। এটি কোন ব্যক্তির আচার-আচরণ চিন্তাভাবনা অনুপ্রেরণা অনুভূতি এবং সুস্থতার বোধ কে প্রভাবিত করে এটি আমাদের বিষন্নতা, চিন্তাভাবনা এবং ঘনত্বের অসুবিধা এবং উল্লেখযোগ্য সময়কে পরিমাণে করাতে পারে। হতাশায় ভুগছেন এমন লোকেদের মধ্যে অনেক সময় আত্মঘাতী চিন্তার অনুভূতিও আসতে পারে। এটি কোন কোন সময় স্বল্পমেয়াদী হয় আবার কোন সময় দীর্ঘমেয়াদি হতে পারে।
হতাশার মূল লক্ষ্যণ গুলিকে এনেডোনিয়া বলে যা সাধারণত হতাশাগ্রস্ত মেজাজ কিছু মুড ডিসঅর্ডার গুলির লক্ষণ যেমন মেজর ডিপ্রেশনাল ডিসঅর্ডার।

১. জীবনের প্রতি এক প্রকার নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি হল ডিপ্রেশন এর প্রথম লক্ষণ এই হতাশার কারণে ব্যক্তি তার বেঁচে থাকে নিরর্থক মনে করেন নিজের প্রতি বিতৃষ্ণা জন্মায় এবং নিজেকে অপরাধী ভাববো শুরু করে।

২. ব্যক্তি হঠাৎ এই যে কোন কিছু কাজ করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলে তার প্রিয় জিনিস গুলো তার কাছে অপছন্দ হতে শুরু করে।

৩. ডিপ্রেশন বা হতাশা আক্রান্ত ব্যক্তির খিদের পরিবর্তন ঘটে। কারোর দৈনিক খিদে বৃদ্ধি পায় আবার কেউ কেউ ক্ষুধার্ত বোধই করে না। এটা তাদের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে।

৪.  তারা নিজেদের আবেগকে পরিচালনা করতে অক্ষম হয় এই সময় তারা কখনও কখনও খুশিতে থাকেন আবার মুহূর্তের ভিতর রেগে যেতে পারেন।

হতাশা রোধ করার কোনও নিশ্চিত উপায় নেই। তবে আপনি চেষ্টা করলে পারবেন:-

১. মানসিক চাপ পরিচালনা করার এবং নিজের আত্মসম্মানকে উন্নত করার উপায়গুলি সন্ধান করুন।
২. ভালভাবে নিজের যত্ন নিন,পর্যাপ্ত ঘুম হচ্ছে কিনা সেদিকে খেয়াল রাখুন। ভাল খান এবং নিয়মিত অনুশীলন করুন।
৩৷ যখন সময়গুলি কঠিন হয় তখন পরিবার এবং বন্ধুদের কাছে পৌঁছান।
নিয়মিত মেডিকেল চেকআপ করান, এবং আপনি যদি ঠিকমতো অনুভব করেন তবে আপনার সরবরাহকারীর সাথে যোগাযোগ করুন।
৪. অ্যালকোহল এবং বিনোদনমূলক ড্রাগগুলি এড়িয়ে চলুন। এগুলি দেখে মনে হতে পারে আপনি আরও ভাল বোধ করছেন। তবে তারা আপনার ডিপ্রেশনের চিকিত্সা করা আরও কঠিন করে তুলতে পারে।
৫. আপনি হতাশায় আছেন এমন দিনে বড়ো বড়ো সিদ্ধান্ত নেবেন না।