মা শুভশ্রীকে কাছে না পেয়ে ক্রমশ মনমরা হয়ে পড়ছে ইউভান; সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলো ভিডিও

মা শুভশ্রীকে কাছে না পেয়ে ক্রমশ মনমরা হয়ে পড়ছে ইউভান; সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলো ভিডিও

কলকাতা হান্ট ডেস্কঃ দিন কয়েক আগেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ব্যারাকপুরের তৃণমূল প্রার্থী রাজ চক্রবর্তীর স্ত্রী অভিনেত্রী শুভশ্রী গাঙ্গুলী। বেশ কিছুদিন ধরেই স্বামী রাজের প্রচারে উপস্থিত ছিলেন শুভশ্রী; সেই সময় বাড়িতে ছোট বাচ্চা রেখে প্রচারে আসার জন্য বেশ সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছিল তাকে। যদিও তাতেও একটু থেমে থাকেননি অভিনেত্রী।রাজের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন পর্যন্ত তার সঙ্গে ছিলেন শুভশ্রী।কিন্তু এরপরে বাড়ি ফিরে আসার পর হঠাৎ করেই তার করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।যার ফলস্বরুপ স্বামী এবং সন্তানকে ছেড়ে সম্পূর্ণরূপে নিভৃতবাসে চলে যেতে হয় অভিনেত্রীকে।

আলাদা বাড়িতে থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মাঝে মাঝেই ছেলেকে নিয়ে বিভিন্ন পোস্ট করছিলেন শুভশ্রী। একজন মা হিসেবে ছেলের থেকে আলাদা থাকার যে কষ্ট তা সকলের সাথে ভাগ করে নেওয়া শ্রেয় মনে করেছিলেন অভিনেত্রী। কিন্তু বর্তমানে বেশ কিছুদিন ধরে তার পুত্র ইউভানও অনেকটা মনমরা হয়ে পড়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ৭ মাসের এই শিশুটি এতদিন পর্যন্ত তার মাকে দেখতে না পেয়ে অত্যন্ত দুঃখি হয়ে পড়েছে তা স্পষ্ট। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে রাজ চক্রবর্তী নিজেও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন।তার দেড় সপ্তাহের মধ্যে করোনায় প্রাণ হারান রাজ চক্রবর্তীর বাবা কৃষ্ণশঙ্কর চক্রবর্তী। সেই সময়ে শুভশ্রী অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

বর্তমানে মায়ের থেকে দূরে থাকা এক রত্তি ইউভান ক্রমশ নিজের মাকে খুঁজে চলেছে।সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে ছোট্ট ইউভান তার মাকে সব সময় খুঁজে চলেছে।অন্যদিকে শুভশ্রীও ছেলেকে খুব মিস করছেন। ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, “তোকে ছেড়ে থাকতে হবে কখনো ভাবি নি”।টিউবলাইট নিউজ নামক একটি জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল থেকে রাজ–পুত্রের এই ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছে। আপাতত সারা নেট দুনিয়ায় এই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। কিছুটা হলেও এই ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার দরুন কটাক্ষের মুখে পড়েছেন শুভশ্রী। কারণ একজন মা হিসেবে শুভশ্রীর কর্তব্য সবচেয়ে আগে। কিন্তু ভোটের প্রচারে গিয়ে তিনি সে কথা প্রায় ভুলতে বসেছিলেন। তবে আমরা দ্রুত অভিনেত্রী শুভশ্রী গাঙ্গুলীর সুস্থতা কামনা করব। যাতে তিনি সুস্থ হয়ে নিজের সন্তানের কাছে ফেরত যেতে পারেন এটাই আমাদের আশা। কারণ একজন ছোট শিশুর তার মাকে ছেড়ে থাকা অত্যন্ত কষ্ট দায়ক।